স্বপ্ন যখন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের D (জীববিজ্ঞান) ইউনিট

ভালোবাসার আরেক নাম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

হৃদয়ের স্পন্দন, সবুজ প্রাণের সজীবতা, যৌবনের দীপ্ততা, মায়ার বাঁধনে বাঁধা, স্নেহভরা, আজীবনের সজীবতায় ঘেরা তা আর কেউ না, আমাদের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। যার উপমা দিলে কম হয়ে যায়, বর্ণণা দিলে বাকি থেকে যায় সেটা আর কেউ নয়, আমাদের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেযর পর যার নাম সবার আগে তা হল জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

বাংলাদেশে সবচেয়ে সুন্দর, মনোরম, শিক্ষাগ্রহনের জন্য উপর্যুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে জাহাঙ্গীরনগর অন্যতম। তাই সেখানে পড়ার ইচ্ছাটা সবার মনেই বেশি। সবাই চায় তাদের ক্যাম্পাসটা হোক সবার সেরা। তাদের ভার্সিটিটা হোক অনন্য। সেই স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদান করা খুব কঠিন কিছু নয়।
জাহাঙ্গীরনগরের ছাত্র হিসাবে আমি আজ গর্বিত। তোমাদেরকে বলব কিভাবে পড়লে তুমিও পারবে স্বপ্নটাকে ছুতে।

  • D unite এ যে বিষয় গুলো আছে কোনোটা থেকে কোনোটা কম নয়।যেমন:

1.Pharmacy,

2.Biotechnology & Genetic Engering,

3.Micro Biology,

4.Bio Chemistry & Molicular Biology,

5.Public health & Informatic, 6.Botany,

7.Zoology.

  • জব সেক্টর : তুমি যে বিষয়েই পড় না কেন দিন শেষে একটাই প্রশ্ন তুমি কি করো। এখান সব সাবজেক্টই যথেষ্ট ভাল এবং দেশে ও দেশের বাইরে অনেক চাহিদা। শুধু তাই নয় এখান থেকে পড়ে প্রতি বছর অনেক শিক্ষার্থী দেশ ও দেশের বাইরে অনেক সুনাম ও গৌরব বয়ে আনছে। অবদান রাখছে দেশ ও দশের কল্যাণে।তাই একটাতে পড়তে পারলেই বদলে যেতে পারে তোমার জীবন।
  •  কিভাবে পড়বে:

প্রথমে বলে রাখি এই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন আর পাঁচটি বিশ্বিবিদ্যালয়ের মত নয়। একটু ভিন্ন ধাচের প্রশ্ন হয়। তাই স্বভাবতই পড়াটাও তেমনই হওয়া উচিত।

“কাচায় না নোয়ালে বাঁশ

পাকলে করে ঠাস ঠাস”

মানে সঠিক সময় থেকেই তোমার প্রস্তুতি শুরু করতে হবে। এখন সঠিক সময় বলতে এস এস সি পরীক্ষার পর কলেজে উঠেই শুরু করে দেওয়া ভাল। এইচ এস সি পরীক্ষার পর যে সময় টুকু পাবা তা চোখের পলকে কেটে যাবে। রুটিন করে পড়ো। নিজের কনফিডেন্স বাড়াও। নিজেকে প্রস্তুত করো।

  • কোন কোন বিষয়ে কত মার্কসের প্রশ্ন অাসেঃ

প্রশ্ন সাধারণত,

উদ্ভিদ বিজ্ঞান- 22

প্রাণী বিজ্ঞান- 22

রসায়ন- 24

ইংরেজী & বাংলা- 8

বুদ্ধিমত্তা- 4

  • কোন বই পড়লে ভাল করা যায়:

সব বইই ভাল তবে ফেমাস রাইটারের বই থেকে প্রশ্ন বেশি আসে। যেমন :

উদ্ভিদ বিজ্ঞান-হাসান স্যার,

প্রাণী বিজ্ঞান-আজমল স্যার, রসায়ন-হাজারী স্যার,

পদার্থ-ইসহাক স্যার

ইত্যাদি।

  • বুদ্ধিমত্তা,বাংলা,ইংরেজি কিভাবে পড়তে হবে:

বুদ্ধিমত্তা তেমন কঠিন কিছু আসে না  তবে “ছায়ামঞ্চ” বই থেকে প্রশ্ন আসতে দেখা যায়। বাংলা পাঠ্য বই পড়লেই যথেষ্ট। ইংরেজীর সাধারণ নিয়মের কিছু বেশির ভাগ সময় বি সি এস থেকে আসতে দেখা যায়।

  •  ভাল মার্ক তোলার উপায়:

আগেই বলা হয়েছে শুরু থেকে ভাল করে পড়তে হবে  বিগত বছরের প্রশ্ন সলভ করলে অনেক সুবিধা হবে।  বই পড়তে গেলে সে বুঝতে পারবে কোথা থেকে প্রশ্ন বিগত বছর গুলোতে হয়েছে এবং সামনে কোনটা আসতে পারে। মুলত উদ্ভিদ বিজ্ঞান, প্রাণী বিজ্ঞান ও রসায়ন থেকে যেহেতু বেশি প্রশ্ন আসে ঐ গুলো ভাল করে পড়তে হবে যাতে সেখান থেকে বেশি মার্ক তোলা যায়। যেহেতু সাথে আরও কিছু বিষয় থেকে প্রশ্ন থাকে তাই ঐ গুলো একই সাথে পড়ে রাখলে ভাল করা সম্ভব।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য যে বইগুলো পড়তেই হবে।(PDF সহ)

আশা করি কথা গুলো তোমাদের কাজে লাগবে। মনে রেখ এটা একটা পরিবার।  যেই আসে মায়া তার পিছু ছাড়ে না। তাই সে বার বার ছুটে আসে এই ক্যাম্পাসে। তোমার জন্য অপেক্ষা করছে এই সবুজ গালিচা। তৈরি করো নিজেকে। প্রস্তুত করো তোমার মরণাস্ত্র। যুদ্ধে তুমি জয়ী হবে। তোমাকে হাতছানি দিয়ে ডাকছে এই সবুজ ক্যাম্পাস।
ইনশাঅাল্লাহ দেখা সবুজের মাঝে।স্বপ্নের ক্যাম্পাস জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে।

ধন্যবাদ

লিখেছেন:অাহমেদ ইশতিয়াক মৃদুল (বায়োকেমিস্ট্রি,জাবি)

এই সম্পর্কিত আরো

Back to top button
Close