বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রস্তুতি

স্বপ্ন যখন বুয়েট ক্যাম্পাস !

সবাই স্বপ্ন দেখে কেউ স্বপ্ন দেখে BUET এর কেউ দেখে DMC অথবা DU এর ৷ প্রাই সবাই চাই ডাক্তার অথবা ইঞ্জিনিয়ার হতে ৷ কারো স্বপ্ন পুরণ হয় কারো হয় না ৷ স্বপ্ন আসলে সবার পুরণ হবে এটাও বাস্তবে সম্ভব নয় ৷ ছেট বেলা থেকেই বাবা মা বলে আমার ছেলে ডাক্তার হবে ,আমার ছেলে ইন্জিনিয়ার হবে ৷ কিন্তু শেষে কি দেখা যায়!

অনেকটা দঃখ জনক কথা বলে ফেলেছি এবার আসল কথায় আসা যাক কিভাবে নিজের স্বপ্ন কে বাস্তবে রুপ দেওয়া যাবে ?

স্বপ্ন যখন বুয়েটএই স্বপ্নটা সত্য করতে হলে তোমাকে কিছু বিষয়ের ওপর লক্ষ্য রাখতে হবে।

তোমার করনীয়:

  • আমার প্রথম কথা হল হতাশা ত্যাগ করতে হবে ৷
    হতাশ থাকার কারনে অনেক কিছুই হারিয়ে যায় জীবন থেকে কিন্তু আমরা তা বুঝি না ৷
  • কেমন ধরনের হতাশা 

আচ্ছা আমরা কি ভাবি না যে বুয়েটে চান্স পাওয়া কি এত সোজা ৷ওটা ভাল স্টুডেন্টের কারখানা ,আমার দ্বারা হবে না ৷ওখানে কত স্টুডেন্ট পরীক্ষা দিবে কিন্তু নিবে মাত্র 1050 জন আমার দ্বারা হবে না ৷ ইত্যাদি ইত্যাদি আসলে এই ভাবনা গুলি আমাদের শেষে বলে পড়ালেখা দিয়ে কি হবে তোর দ্বারা হবে না ৷
এসব ত্যাগ করতে হবে ৷

  • কোচিং সমস্যা

 আর কোচিং টাইমে অনেকের কোচিং নিয়ে মাথা ব্যাথা থাকে অনেকে ভাবে ঐ কোচিং এ পড়ে আমার মনে হয় ভাল হত ৷ এই ভাবনা বাদ দিতে হবে ৷ কারন বুয়েট তো আর কোচিং দেখে নিবে না ৷ বুয়েট তোমার মেধা দেখে নিবে ৷ আর মেধা তোমার একান্ত নিজস্ব ৷ 2 বছর পড়ার পর HSC দিবে ৷ আর মাত্র 3/4 মাস কেচিং করে অ্যাডমিশন দিবে ৷ কথা হল এই তিন মাসে কি 2 বছরের সব ক্লিয়ার করা সম্ভব! তাই এই 2 বছরের পড়াটাই সব ৷ কোচিং তোমাকে শুধু পথ দেখিয়ে দিবে ৷ বড় ভায়েরা কেচিং এ দেখাবে কি করে স্বপ্নের পথে এগিয়ে যেতে হয় তা ছাড়া আর কিছু নয় ৷
আমি নিজে ইন্জিনিয়ারিং এর জন্য কোন কোচিং করি নাই ৷ তার পরও বুয়েটে চান্স হয়েছে ৷ তাই ইন্জিনিয়ারিং কোচিং এ কি হয় তা নিয়ে আমার বেশি কিছু জানা নেই ৷ তবে কোচিং করা লাগে এটা একটা নিয়মের মধ্যে পড়ে গেছে ৷

  • উদ্দেশ্যহীন পড়ালেখা

আচ্ছা আমরা অনেকে খুব পড়ালেখা করলাম তারপরো হলো না কিছুতেই এর কারন কি ? কারন পড়াটা ছিল কিন্তু কেন পড়ালেখা করছি সেটাই জানি না এই কারনে ৷ পড়ার উদ্দেশ্য কি তাও জানতে হবে ৷ উদ্দেশ্যহীন ভাবে পড়ালেখে করলে কিছুই হয় না ৷নিজে উপলব্ধি করেছি এটা আমি |

  • কত সময় পড়তে হবে

কত সময় পড়তে হবে অ্যাডমিশন টাইমে ৷ এটা সবার কমন প্রশ্ন ৷আচ্ছা তুমি ভাব একজন সাইকেলে আরেক জন বাসে করে নড়াইল থেকে যশোর এ যাচ্ছে ৷ কে আগে পৌছাবে নিশ্চই বাসে যাওয়া ব্যাক্তি ৷ কিন্তু সাইকেলে যাওয়া ব্যাক্তিও কিন্তু যশোর গিয়ে পৌছাবে এক সময় ৷তবে তার সময় বেশি লাগবে এই আর কি ৷ ঠিক তেমনি তুলনা করে সব হয় না ৷
তোমার নিজেকে বুঝতে হবে ঠিক কত সময় দিলে তুমি পারবে ৷

  • হতাশার অন্য রূপ

স্কুল কলেজে পেছনে পড়ে থাকা এটা নিয়ে অনেকে চিন্তিত থাকি ৷ সব কিছু করার পরও ভাবি এটা বোধ হয় ঐ প্রথম সারির জন্য আমার জন্য নয় ৷এটা ত্যাগ করতে হবে ৷

  • কনফিডেন্স

কনফিডকনফিডেন্স থাকা ভাল কিন্তু অভার কনফিডেন্স ভাল না ৷ হ্যা আমার দ্বারা এটা হতে হতে পারে ৷ এটা হল কনফিডেন্ট ৷ এটা না থাকলে হবে না ৷
আমার হবে নাতো কার হবে ৷ এটা অভার কনফিডেন্ট ৷ এটা না থাকাই ভাল ৷
কারন তোমার থেকে কেই না কেউ উপরে আছেই ৷এটা তোমাকে ধ্বংসও করে দিতে পারে।

  •   ডাক্তার vs ইঞ্জিনিয়ার

 দুই নৌকাতে পা না দেওয়া ভাল ৷ যেমন ধর ইঞ্জিনিয়ার আবার ডাক্তার দুই টাই হতে চাও ৷ দুই কোচিং এক সাথে চালাচ্ছ ৷ এতে করে তোমার দুই স্বপ্ন মাটি হবার সম্ভবনা আছে ৷বেশিরভাগ ক্ষেত্রই এমন হয়।পরে দেখা যায় নরমাল ভার্সিটিও কপালে নেই। তবে অনেকেই ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার দুটোই হবার সুযোগ পাই ৷তবে তাদের সংখ্যা খুব কম ৷

  •   ঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে

 মনে রাখতে না পারা এটা সব সময় যে খারাপ তা নয় ৷ যে মনে রাখতে কম পারে বাস্তবে দেখ সে অংক ভাল পারে ৷ এটা হয়ত তাকে ইঞ্জিনিয়ারিং এর দিকে ডেকে নিতে চাই ৷ কিন্তু জোর করে আমরা ডাক্তারি তে যেতে চাই ৷ কিন্তু পারি না যেতে ৷
অাবার, মা বাবা বলে বাবা তুমি ডাক্তার হও ৷ মামা বলে তুমি ইঞ্জিনিয়ার হও ৷
পাশের বাসা থেকে বলবে তুমি এত ভাল পার তাহলে ইঞ্জিনিয়ার কেন হবে ডাক্তার হও ৷ শেষে আমরা কি চাই এদের চাপে পড়ে সব ভুলে যাই ৷
তাই নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নেওয়াই ভাল এসব ক্ষেত্রে ৷

  • কোন বই ভালো

 কোন বই পড়লে ভাল হবে ৷ এটা একটা ব্যাপার বটেই ৷ তবে আমার মনে হয় যে বইটা 2 টা বছর পড়লাম সেটা পড়াই ভাল ৷ 2 বছর পর এটা বাদ দিয়ে ভাল লেখকের বই পড়া শুরু করলাম তখন পুরাতন বইটা রাগ করতে পারে ৷ তবে পারলে তখন ঐ লেখকের নতুন বইটা কিনে পড়া ভাল ৷
লেখক পরিবর্তন করলে বই এর ধরন পরিবর্তন হবে ৷ মাত্র 3 মাসে নতুন বই এর সাথে খাপ খাওয়ানো কঠিন ব্যাপার।

  •    বুঝে পড়তে হবে

 কোন কিছু বুঝে পড়া আর না বুঝে পড়া, দুইটাকেই আমরা পড়ার মধ্যে নিয়ে আসি ৷ না বুঝে পড়াটা আসলে পড়া না ৷ বুঝে পড়লে কম সময়ে নিজের আয়ত্তে আনা সম্ভব ৷তাই যা পড়বে অবশ্যই বুঝে পড়বে।না বুঝে পড়ে কোনোই লাভ নেই।

  •   লেখার গুরুত্ব

 পড়ার সাথে সাথে কাগজ কলম দিয়ে লেখার কাজটা করা বেশি জরুরি ৷
পড়ে মনে না থাকলেও লিখলে মনে থাকার সম্ভবনা বেশি থকে ৷
তাই লেখা বেশি করে করতে হবে।

  •   বেশি পড়ার কুফল

 যতটুকু পড়তে মন চাইবে ততো টুকুই পড়া ভাল ৷ বেশি পড়ে আতেলের খাতাই নিজের নাম না লেখানো ভাল ৷ কারন মন না থাকলে বেশি পড়ে লাভ নাই ৷

আমি যা যা বললাম এটা করলেই চান্স হয়ে যাবে এটা ভাবা নিতান্ত বোকামি ছাড়া আর কিছু না ৷ এটা শুধু দেখিয়ে দেওয়া কিছু পথ ৷
নড়াইল থেকে ঢাকা যাওয়ার যেমন অনেক পথ আছে ঠিক তেমনই স্বপ্ন বাস্তব করার অনেক পথ আছে ৷ সবটাই একান্ত নিজস্ব ব্যাপার ৷

আর একটা কাজ সব সময় করতে হবে ৷ খোদার প্রতি আস্থা রাখতে হবে ৷
এত কিছু করার পরও যদি না হয় তাহলে বুঝবে তোমার কপালে এটা নেই ৷

সবটা নিজের থেকে লেখা ৷ এটা আমার জিবনে পাওয়া কিছু ঘটনা থেকে নিয়ে লিখলাম ৷কোন ভুল ত্রুটি হলে আমাকে ক্ষমা করে দিবেন ৷

Hasnat Rahman
BUET-17 (CE)

স্বীকারোক্তিঃ এখানে উপস্থাপিত সকল তথ্যই দক্ষ ও অভিজ্ঞ লোক দ্বারা ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করা। যেহেতু কোন মানুষই ভুলের ঊর্দ্ধে নয় সেহেতু আমাদেরও কিছু অনিচ্ছাকৃত ভুল থাকতে পারে।সে সকল ভুলের জন্য আমরা আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী এবং একথাও উল্লেখ থাকে যে এখান থেকে প্রাপ্ত কোন ভুল তথ্যের জন আমরা কোনভাবেই দায়ী নই এবং আপনার নিকট দৃশ্যমান ভুলটি আমাদেরকে নিম্নোক্ত মেইল / পেজ -এর মাধ্যমে অবহিত করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

ই-মেইলঃ admin@admissionwar.com অথবা এইখানে ক্লিক করুন।

admissionwar-fb-pageaw-fb-group
Back to top button